ফেব্রুয়ারী মাস ২৮ দিনের হয় কেন || আসল তথ্যটি জানলে অবাক হবেন

ফেব্রুয়ারী মাস ২৮ দিনের হয় কেন || আসল তথ্যটি জানলে অবাক হবেন

Spread the love
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

বঙ্গভূমি ফেসবুক পেজটি লাইক করুন

ফেব্রুয়ারী মাস ২৮ দিনের হয় কেন ?

আমরা জানি ফেব্রুয়ারী মাস ২৮ দিনের হয়, তবে প্রতি চার বছর অন্তর ফেব্রুয়ারী মাসের শেষে একদিন অতিরিক্ত সংযুক্ত করে ২৯ দিনে ফেব্রুয়ারী মাস গণনা করা হয়। কেননা একবার সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে পৃথিবীর ৩৬৫ দিন ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৬ সেকেন্ড সময় লাগে কিন্তু আমরা ৩৬৫ দিনকেই এক বছর ধরি, ফলে স্বাভাবিক ভাবেই প্রতি বছর ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৬ সেকেন্ড অর্থাৎ ৬ ঘণ্টা অতিরিক্তসময় থেকে যায় এবং এই অতিরিক্ত সময় অর্থাৎ ৬ ঘণ্টা প্রতি ৪ বছরে অতিরিক্ত একদিন (২৪ ঘণ্টা) সময়ের সমান হয়,তাই প্রতি চার বছর অন্তর এই ২৪ ঘণ্টা বা একদিন ফেব্রুয়ারী মাসের শেষে যুক্ত হয়ে ২৯ দিনে ফেব্রুয়ারী মাস গণনা করা হয়।

[আরও পড়ুন- জানুন বিশ্বের নানান অদ্ভুত ঘটনাগুলি]

         তবে এটি আমাদের আলোচ্য বিষয় নয়, আমাদের প্রধান আলোচ্য বিষয় হল – সারা বছর ১২ টি মাস থাকে এবং প্রত্যেক মাস হয় ৩০ দিন অথবা ৩১ দিনের হয়,কিন্তু কেবল ফেব্রুয়ারী মাস ২৮ দিনের হয় কেন ?

[আরও পড়ুন- মহাকাশ থেকে স্টেচু অফ ইউনিটি কে কেমন লাগে দেখুন]

     এর পেছনে রোমান অধিবাসীদের ভূমিকা রয়েছে, রোমে প্রাচীন সময়ে যেসকল শাষকেরা শাসন করত তাদের সামনে একটি সমস্যা ছিল, আর তা হল রোমের বিভিন্ন উৎসব,পার্বণ,ধর্মীয় কার্যাদি প্রভৃতি ব্যবস্থাপনার জন্য তাদের একটি ক্যালেন্ডারের প্রয়োজন ছিল,তাই তারা চান্দ্রমাস নির্ভর একটি ক্যালেন্ডার প্রস্তুত করল। এই ক্যালেন্ডারের একটি আশ্চর্য বৈশিষ্ট্য ছিল, এই ক্যালেন্ডারটিতে ১০ টি মাসের উল্লেখ ছিল।এই মাসগুলির প্রত্যেকটিকে ৩০ অথবা ৩১ দিনকে একমাস হিসাবে গণনা করা হত।এই ক্যালেন্ডার অনুসারে বছর শুরু হত মার্চ মাস দিয়ে এবং শেষ হত ডিসেম্বর মাসের মাধ্যমে।কিন্তু এতেও সমস্যা মিটল না, এই ভাবে গণনার ফলে বছর কিছুদিন ছোট হয়ে গেল।কারন যেহেতু শীতকালে (নাতিশীতোষ্ণ মণ্ডলের দেশ রম) প্রচন্ড ঠাণ্ডায় রোমানরা চাষবাস করতে পারত না তাই তারা বছরের অতিরিক্ত দিনকে গণনার বাইরে রেখে দিল।এই ব্যবস্থা ঠিক ঠাকই চলছিল কিন্তু পরে ডিসেম্বর শেষ এবং মার্চ মাস শুরুর সঠিক গননায় সমস্যা দেখা দেয়,তাই রোমের অপর এক শাসক নুমাপম্পেলিউয়াস ক্যালেন্ডারকে আরও নিখুঁত বানানোর পরিকল্পনা নেন। রোমানরা জোড় সংখ্যাকে অশুভ বলে মনে করত,তাই তারা জোড় সংখ্যা থেকে একদিন কম করে গণনা শুরু করল। নুমাপম্পেলিউয়াস তাঁর প্রনীত ক্যালেন্ডারটি ১২টি চন্দ্রমাস ধরে প্রস্তুত করেন অর্থাৎ ১চান্দ্রমাস = ২৯.৫ দিন,অতএব ১২ চান্দ্রমাস = ২৯.৫ * ১২ = ৩৫৪ দিনে এক বছর।কিন্তু এক্ষেত্রেও বছরের শেষে জোড় সংখ্যা থাকায় সমস্যা দেখা দিল,তাই নুমা বছরের শেষে আরও একটি দিন যোগ করে দেন,ফলে বছরে দিনের সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৫৪ দিন + ১ দিন = ৩৫৫ দিন।এরপর নুমা বছরের অতিরিক্ত দিনকে দুইটি অতিরিক্ত মাসে ভাগ করে দেন অর্থাৎ ৩৫৫ দিন (নুমার প্রচলিত ১২ চান্দ্রমাস – ২৯৮ দিন (প্রাচীন ১০ চান্দ্রমাসের ক্যালেন্ডার )=৫৭ দিনকে দুটি অতিরিক্ত মাসে যথা জানুয়ারী মাসকে ২৯ দি এবং ফেব্রুয়ারী মাসকে ২৮ দিনে বণ্টন করে দেন। এই ভাবে রোমান ক্যালেন্ডার প্রস্তুত হয়ে যায়। প্রাচীন প্রথা অনুসারে যেহেতু জোড় সংখ্যা অশুভ তাই রোমান অধিবাসীরা অশুভ শক্তিকে আরাধনা ও সন্তুষ্ট করার জন্য ফেব্রুয়ারী মাসকে বেছেনেন। তবে এত বদলের পরও ক্যালেন্ডারটিকে ত্রুটিমুক্ত করা যায়নি, ছোট ছোট ভুলভ্রান্তি থেকে যায়। এরপর অপর এক রোমানসম্রাট জুলিয়াস সিজার মিশরে প্রচলিত ক্যালেন্ডার দ্বারা প্রভাবিত হন,এই ক্যালেন্ডারে ৩৬৫দিনকে বছর ধরে গণনা করা হত যা বর্তমানে প্রচলিত ক্যালেন্ডারের মত ছিল প্রায়। সিজার চান্দ্রমাসের বদলে সূর্য পরিক্রমাঅনুসারে ক্যালেন্ডার প্রস্তুত করার নির্দেশদেন। সূর্য ক্যালেন্ডার অনুসারে মার্চ মাসের বদলে জানুয়ারী মাস দিয়ে বছরের সূচনা হ্য়,তাই রোমান ক্যালেন্ডারে জানুয়ারী ও ফেব্রুয়ারী মাস কে বছরের প্রথম ও দ্বিতীয় মাস হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয় এবং ৩৫৫দিনের সঙ্গে ১০দিনকে আলাদা আলাদা মাসের শেষে যুক্ত করে ৩৬৫দিনকে এক বছর ধরে গণনা শুরু হয়।


বঙ্গভূমি ফেসবুক পেজটি লাইক করুন

Spread the love
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

Leave a Reply